ওসমানীনগর ভিলেজ ডেভলাপমেন্ট ইন্সটিটিউটের উদ্বোধন

শিপু আহমেদ  (সিলেট প্রতিনিধি) : এলাকার বেকার জনগোষ্ঠির আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি। ওসমানীনগর উপজেলায় প্রযুক্তি নির্ভর একটি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। যুক্তরাজ্য ভিত্তিক আল-ইনসান কেয়ার ট্রাস্ট ফান্ড নামের একটি প্রবাসী সংগঠনের পক্ষ থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলা হচ্ছে। এতে কারিগরি বিভিন্ন বিষয়ের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়ে এলাকার বেকার জনগোষ্ঠি আত্মকর্মসংস্থানে মনোনিবেশ করার সুযোগ পাবেন। এতে তাদের উন্নত ভবিষ্যতের দ্বার উন্মেচিত হবে সচেতন মহল অভিমত প্রকাশ করেছেন। ওই প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে ঘিরে এলাকার সর্বস্তরের লোকজনের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলায় এলাকার সর্ব মহল থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন বলে উদ্যোক্তা পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।

জানা যায়, বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগর উপজেলায় সরকারি ব্যবস্থাপনায় কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার দাবি ছিল দীর্ঘ দিনের। কিন্তু সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের উদাসীনতায় এ দাবিটি দীর্ঘদিন ধরে উপেক্ষিত রয়ে গেছে। এছাড়া দুই উপজেলার অধিকাংশ মানুষ স্থায়ী ও অস্থায়ীভাবে ইউরোপ, আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করছেন। কিন্তু প্রবাসী অধ্যুষিত এ দুই উপজেলায় সরকারি ব্যবস্থাপনা কিংবা কোনো প্রবাসী সংগঠন কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণে এগিয়ে না আসায় শিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণীরা হতাশায় নিমজ্জিত হচ্ছেন। কারিগরি শিক্ষার অভাবে তারা কর্মসংস্থানের সুযোগ পাচ্ছেন না। এলাকার বেকার জনগোষ্ঠিকে কারিগরি শিক্ষায় প্রশিক্ষিত করে ও দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করতে উপজেলার সাদীপুর ইউনিয়নের মোবারকপুর গ্রামে স্থায়ীভাবে ওই কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু হচ্ছে।

যুক্তরাজ্যস্থ প্রবাসী কমিউনিটি নেতা মো: ফজল উদ্দিনের পারিবারিকভাবে প্রতিষ্ঠিত সমাজ সেবামূলক সংগঠনের উদ্যোগে ওই কারিগরি প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলা হয়েছে। পশ্চিম মোবারকপুর গ্রামের হাজী ইনসান উল্লাহ মার্কেটে ‘ওসমানীনগর ভিলেজ ডেভলাপমেন্ট ইন্সটিটিউট’ নামের এই প্রতিষ্ঠানটি বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এটির উদ্বোধন কররেন । কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা মো: ফজল উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে প্রবাসে থেকেও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে অসহায়-দরিদ্র মানুষের জন্য কাজ করে আসছেন।

তিনি যুক্তরাজ্যস্থ আল-ইনসান কেয়ার ট্রাষ্ট ফান্ড ইউকের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, মোবারক ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্ট ইউকের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও মদিনাতুল খায়েরী আল ইসলামী ইউকে সেক্রেটারী জেনারেলসহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। আল-ইনসান কেয়ার ট্রাষ্ট ফান্ড ইউকের পক্ষ থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করা হবে। এ বিষয়ে ওসমানীনগর ভিলেজ ডেভলাপমেন্ট ইন্সটিটিউটের উদ্যোক্তা মো: ফজল উদ্দিন বলেন, বিভিন্ন সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে আমরা বিভিন্নভাবে সাধারণ মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। আমরা প্রায় সময় প্রবাস থেকে সংবাদ মাধ্যমে দেখতে পাই যে- ওসমানীনগর এলাকা প্রযুক্তি নির্ভর কারিগরি শিক্ষা থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। তাই আমার পারিবারিক উদ্যোগে এবং প্রবাসে অবস্থানরত আমার পরিবারের সদস্যদের আর্থিক অনুদানে এই প্রতিষ্ঠানটি করার উদ্যোগ নেই।

প্রতিষ্ঠানটিকে পূর্ণাঙ্গ ভাবে বাস্তবায়নে আমি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষ এবং এলাকার সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করছি।সংশ্লিষ্ট এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল হাই বলেন, এলাকার ছেলে-মেয়েদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে এবং তাদেরকে কর্মসংস্থানে আগ্রহী করার লক্ষ্যে যে উদ্যোগটি নেয়া হয়েছে সেটা অবশ্যই প্রশংসনীয়। গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো: মনির উদ্দিন বলেন, প্রবাসীরা আমাদের গর্বের ধন, তাদের অবদান সর্বক্ষেত্রে। অত্রাঞ্চলে কারিগরি শিক্ষার মান উন্নয়নে প্রবাসী পরিবারের পক্ষ থেকে যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন হলে এলাকার জন্য এটি একটি অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। ওসমানীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবুল লেইছ বলেন, স্কুল-কলেজের পাঠ চুকিয়ে অনেকেই বেকার হয়ে পড়েন। তারা দক্ষতার দিক দিয়ে পিছিয়ে থাকার কারণে কর্ম সংস্থানের সুযোগ পাচ্ছেন না। এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এ সকল বেকার জনগোষ্ঠি উপকৃত হবেন বলে আমি মনে করি। বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগর উপজেলার দায়িত্বে থাকা সহকারি যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বলেন, এলাকায় কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করা হচ্ছে বিষয়টি আমরা শুনেছি। এ ধরণের প্রতিষ্ঠানের অগ্রযাত্রায় আমাদের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।