করোনার প্রতিষেধক কাজ করবে-সারা গিলবার্ট

সারা-গিলবার্ট

টেক ট্র্যাভেল ডেস্ক ঃ গোটা বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ২ লক্ষ ছাড়িয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার লক্ষণ নেই। হার্ভার্ডের গবেষকদের আশঙ্কা সত্যি হলে, আগামী শীতে নতুন করে ফিরে আসবে কোভিড-১৯।

প্রতিষেধকের জন্য যখন হাহাকার, আশার আলো দেখাচ্ছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। গতকাল থেকে থেকে ভ্যাকসিনের খোঁজে মানবদেহে পরীক্ষা-নিরীক্ষা বা হিউম্যান ট্রায়াল শুরু করেছে তারা। বিজ্ঞানীদের আশা, ‘ফাইনাল পরীক্ষা’ সফল হলে সেপ্টেম্বরের মধ্যেই মিলে যাবে প্রতিষেধক।

মানবদেহে প্রয়োগ করা প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে আশাবাদী অক্সফোর্ড বিজ্ঞানীদের গবেষণার নেতৃত্বে থাকা সারা গিলবার্ট। তিনি জানান, ব্রিটেনে মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা এই ভ্যাকসিন প্রতিষেধকের কাজ করবে।

লন্ডনে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক মানবশরীরে করোনার ভ্যাকসিন পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করেন। সেখানে প্রথমবারের মতো দুজনের দেহে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়।

ভ্যাকসিনটি প্রয়োগের পর গবেষণার নেতৃত্বে থাকা ও ইবোলার প্রতিষেধক তৈরিতে দিশা দেখানো গিলবার্ট তার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সারা গিলবার্ট বলেন, ‘আমি এ ধরনের প্রতিষেধক নিয়ে কাজ করেছি। মার্সের প্রতিষেধক নিয়ে কাজ করেছি। এর কী ক্ষমতা তা জানি। আমার বিশ্বাস এই প্রতিষেধকে কাজ করবে।’

স্কুলজীবন থেকেই মেডিসিন নিয়ে পড়াশোনার প্রতি ঝোঁক থাকা গিলবার্ট ১৯৯৪ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন। ২০০৪ সালে ভ্যাক্সিনোলজির রিডার হিসেবে নিয়োগ পান। গিলবার্ট জেন্নার ইনস্টিটিউট এন্ড ন্যুফিল্ড ডিপার্টমেন্ট অব ক্লিনিক্যাল মেডিসিনের ভ্যাকসিনোলজির অধ্যাপক।

২০১৩ থেকে ২০১৫ সালে আফ্রিকায় কাঁপিয়েছিলো ইবোলা নামে ভাইরাস। মূলত পশ্চিম আফ্রিকায় প্রাদুর্ভাব হওয়া এই মহামারিতে ১৩ হাজার ৩১০ জন মারা গিয়েছিল। সেবার এই ভাইরাস রুখতে দিশা দেখিয়েছিলেন অক্সফোর্ড বিজ্ঞানী অধ্যাপক সারাহ গিলবার্ট।

এবার যখন সারা বিশ্ব রহস্যময় ভাইরাস করোনার তাণ্ডবে স্থবির, এই রোগ মোকাবিলায় দিশেহারা বিশ্বনেতারা, আবার আলো হাতে সেই সারাহ গিলবারট। তার নেতৃত্বে তৈরি হচ্ছে ক্রোনার ভ্যাকসিন, গতকাল যেটি মানবশরীরে প্রয়োগ করা হয়। এই প্রতিষেধকের সাফল্য নিয়ে ৮০ ভাগ নিশ্চিত বিজ্ঞানীরা।

কোভিড-১৯ এর মোকাবিলায় অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা তৈরি করেছেন ‘চ্যাডক্স ১’ ভ্যাকসিন। বিজ্ঞানীদের দাবি সেপ্টেম্বর থেকে মিলবে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক। এই সময়ের মধ্যেই ১০ লক্ষ প্রতিষেধক তৈরির প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছেন তারা।