মানবতার সেবায় অনলাইন ভিত্তিক সংগঠন সুখ পাখি

Screenshot_20191004

সজিবুল ইসলাম হৃদয়, নিউজ ডেস্কঃ   সিরাজগঞ্জে আর্তমানবতার সেবার ব্রত নিয়ে যাত্রা শুরু করে এক ঝাঁক সেচ্ছাসেবীর অনলাইন ভিত্তিক মানবতার সংগঠন “সুখ পাখি”।”অসহায়, অচল, এতিম ও পঙ্গু মানুষদের ক্ষুদ্র কর্মসংস্থান যার প্রতিশ্রুতি” – এই স্লোগান সামনে রেখে সিরাজগঞ্জে ২০১৭ সালের প্রথম দিকে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘সুখ পাখি’।

যারা দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে এবং তাদের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সদা প্রস্তুত। 
জাহিদ হোসেন রজবের পরিচালনায় ও ১০৫ জন সেচ্ছাসেবীর ক্ষুদ্র থেকে মাঝারি অর্থয়ানে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটি। প্রথমে ৭০ জন বৃদ্ধার উন্নত মানের খাবার নিশ্চিত করণ কর্মসূচির মাধ্যমে সল্প পরিসরে এ সংগঠনটির যাত্রা শুরু হলেও বিগত দিনগুলোতে সংগঠনটি ১০ জন অসহায়, অচল, এতিম ও পঙ্গু মানুষদের ক্ষুদ্র কর্মসংস্থান তৈরী করা সহ শীতার্তদের মাঝে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানের মাধ্যমে শীতবস্ত্র বিতরণ, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে শিক্ষা উপকরণ বিতারণ, ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রদান, অস্বচ্ছলদের চিকিৎসা ব্যয় নির্বাহ, ফ্রি ব্লাড গ্রুপ ক্যাম্পেইন ও স্বেচ্ছায় রক্তদানে উদ্ধুদ্ধকরণ সহ বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ে।

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠতা পরিচালক জাহিদ হোসেন রাজিব নিউজ ঢাকা ২৪ কে জানান, সংগঠনটির যাত্রা সল্প পরিসরে শুরু হলেও তা বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিস্তার লাভ করছে। কেউ সেচ্ছায় শ্রম দিয়ে কেউ বা অার্থিক সহযোগিতায় মাধ্যমে মানবতার সেবায় এগিয়ে অাসতে উদ্ধুদ্ধ করে তুলেছেন। যার মাধ্যমে সেচ্ছাসেবায় প্রতিদিন যুক্ত হচ্ছে নানান শ্রেণী পেশার মানুষ। এছাড়া মানবতার তাগিদে মৃত্যুর পরও তার কর্মকে সমাজে বাঁচিয়ে রাখার প্রয়াস থেকেই দুস্থ মানুষের সেবার কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি। 

সংগঠনটির স্বাস্থ্য ক্যাম্পের তত্ত্ববধায়ক রিফাত শিমুল জানান, প্রতিষ্ঠার লগ্ন পর থেকেই সিরাজগঞ্জের  অবহেলিত ও দরিদ্র মানুষের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে ডাঃ গোলাম কিবরিয়ার নেতৃত্বে একটি মেডিকেল টিম। সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার ৫/৬ জন ডাক্তার সহ বেশ কিছু চিকিৎসা সহকারী ও টেকনোলজিস্ট সেচ্ছায় সেবা দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি। এমতাবস্থায়, ভবিষ্যতে নিরলসভাবে দুস্থদের সেবায় ‘সুখ পাখি’র সেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার প্রয়াস ব্যক্ত করেছেন এসব মানবতার কারিগররা।