মোবাইল ম্যালওয়্যার আক্রান্তের শীর্ষে বাংলাদেশ

malware

ইমাম হোসেন শাকিল (ফেনী, ছাগলনাইয়া প্রতিনিধি) : চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিককে ঘিরে এই গবেষণায় এমন চিত্রের দেখা মিলেছে। দেশে প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে মোবাইল সিম ব্যবহারকারীর সংখ্যা। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) হিসাব অনুযায়ী যেসব বায়োমেট্রিক ভেরিফাই করা সিম ৯০ দিনের মধ্যে অন্তত একবার ব্যবহার করা হয়েছে, সেসব সিম ব্যবহারকারী সাড়ে ১৫ কোটির বেশি (অক্টোবর পর্যন্ত)। 

এত সংখ্যক সিম ব্যবহারকারীর রয়েছে ফিচার বা স্মার্টফোন। মানুষের হাতে থাকা স্মার্টফোনটি কোনো-না-কোনোভাবে ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকারক সফটওয়্যারে আক্রান্ত হচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তি নিরাপত্তাবিষয়ক গবেষণাকারী অনলাইন প্রতিষ্ঠান সিকিউরলিস্ট জানিয়েছে, মোবাইল ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত ১০টি দেশের মধ্যে  শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ । চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিককে ঘিরে এই গবেষণায় এমন চিত্রের দেখা মিলেছে। গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশের ৩৫ দশমিক ৯১ শতাংশ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে নাইজেরিয়া ও ইরান। এর মধ্যে নাইজেরিয়ার ২৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং ইরানের ২৮ দশমিক ০৭ শতাংশ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী মোবাইল ম্যালওয়্যারে

আক্রান্ত।

সর্বোচ্চ ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত ১০ দেশের মধ্যে চীন, ভারত ও পাকিস্তানের অবস্থান যথাক্রমে ৫ম, ৬ষ্ঠ এবং ৭ম। এদিকে ২০১৭ সালের তৃতীয় প্রান্তিক এবং এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিক তুলনা করলে দেখা যায়, গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ম্যালওয়্যারের আক্রান্তের দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল দ্বিতীয়। সেই সময়ে দেশের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর ২৮ দশমিক ৩০ শতাংশ মোবাইল ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত ছিল। বিটিআরসির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত দেশের মোবাইল সিম ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ১৪ কোটির বেশি। অর্থাৎ দেশে স্মার্টফোন বৃদ্ধির হারের পাশাপাশি এক বছরে ম্যালওয়্যার আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৭ দশমিক ৬১ শতাংশ।

২০১৭ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে ইরানে মোবাইল ম্যালওয়্যার আক্রান্তের সংখ্যা ছিল বেশি। দেশটির ৩৫ দশমিক ১২ শতাংশ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী মোবাইল ম্যালওয়্যারে আক্রন্ত ছিল। বর্তমানে তা কমে এসেছে ২৮ দশমিক ০৭ শতাংশে। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের প্রতিবেদনের তুলনায় দেখা যায়, এক বছরে ভারতে মোবাইল ম্যালওয়্যার আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে, চীনে কমেছে এবং পাকিস্তানে বৃদ্ধি পেয়েছে। মোবাইল ম্যালওয়্যার থেকে রক্ষা পেতে করণীয় মোবাইল ম্যালওয়্যারে আক্রান্তে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সচেতনতার অভাব বলে মনে করেন অ্যাপ বিশেষজ্ঞ নুরুল হুদা রবিন। তার মতে, দেশের সিংহ ভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর জানা নেই কোন অ্যাপ কী পারমিশন নিচ্ছে, কোন অ্যাপ ডাউনলোড করা যাবে আর কোনটি করা যাবে না।

মোবাইল ম্যালওয়্যার থেকে রক্ষা পেতে এই অ্যাপ বিশেষজ্ঞ কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে বলেন। এর মধ্যে রয়েছে, প্রথমত, নিজেদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি। একই সঙ্গে অ্যাপ স্টোর বাদে অন্য কোনো স্থান থেকে অ্যাপ ডাউনলোড না করা। দ্বিতীয়ত, ডাউনলোডের সময় অ্যাপগুলো কী পারমিশন চেয়ে নিচ্ছেএ বিষয়ে অবগত থাকা। যেসব অ্যাপ প্রয়োজনের অতিরিক্ত পারমিশন নিয়ে থাকে তা ডাউনলোড থেকে বিরত থাকাই ভালো নুরুল হুদা রবিন জানান, ক্রাক অ্যাপ ডাউনলোড না করার পাশাপাশি স্মার্টফোনে থাকা অ্যাপ ও অপারেটিং সিস্টেমের নিয়মিত হালনাগাদ করা জরুরি।