থাইল্যান্ড ভ্রমণঃ ৬ষ্ঠ পর্ব

Thailand

মাহাতাব লিটনঃ জেমস্ বন্ড আইল্যান্ড প্যাকেজ চুড়ান্ত হল ৫০০০ বাথের ( বাথ হচ্ছে থাই টাকা ) বিনিময়ে। । ওদের এক টাকা সমান = ২.৭০ পয়সা আমাদের টাকা। ফুকেটে অসংখ্য সি-বিচ তা আমরা ছিল কামার, পাতঙ্গ বিচে। হোটেল থেকে ঘড়ি ধরে পায়ে হেঁটে মাত্র ৫মিনিট।

দুপুরে কড়া রোদ্দুরে সাগরে নাইতে চললাম পুরো প্যাকেজ মানে পুরো পরিবারটাই। তা সাগর পাড়ে গিয়ে একটু বিব্রতবোধ করছিলাম

পরিবেশটা দেখে, কারণ আমরা ছাড়া আর সবাই সাগর জলে ঢেউয়ের সাথে খেলছিল ভাসছিল স্বল্প পোষাকে, সাগর স্নান বা রোদ্দুরে স্নান এতো টিভি বা মুভিতে দেখেছি কিন্তু স্বচক্ষে… এই প্রথম। সাথে আমার তিনজনা তিন বয়সের শিশুকন্যা, কিশোরী ও নারী।

আমাদের পরিবার সদস্যরা নেমে গেলেন সাগর জলে। আর আমি ডিএসএলআর ক্যামেরায় অটো থেকে ম্যানুয়াল মুডে ছবি তোলার চেস্টারত। একটুও পানিতে নামিনি সেদিন সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সামান্য টাকা পয়সা। তার নিরাপত্তা দিতে সদা প্রস্ত্তুত।থাইল্যান্ডের উপসাগরের নীলাকাশ নীলজল দু’পাশে সবুজের পাহাড়, পাহাড়ের বুকে দৃশ্যমান ইমারত সারিসারি, সবই গড়ে উঠেছে পর্যটনকে কেন্দ্র করে।

সবচেয়ে আকর্ষনীয় শত শত দ্বীপ নীল জলরাশির মাঝে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে, পাথরেরবুকে সুবজে ঘেরা অসংখ্য দ্বীপ দেখতে এই দ্বীপগুলি দেখতে ছুটে আসে পর্যটকরা। পি পি আইল্যান্ড, জেমসবন্ড, হাংগ আইল্যান্ড ও মান্কি আইল্যান্ড বিখ্যাত।

পর্যটক বান্ধব থাইল্যান্ড হাওয়াবদল বা চেঞ্জের জন্য সঠিক স্থান। তবে হলফ করে বলতে পারি আমাদের রাঙামাটির কাপ্তাই লেকটাকে যদি পর্যটক বান্ধব করা যেত তবে শুধু বিদেশী পর্যটকই নয় দেশী পর্যটকদের ঠাঁই দেয়া কঠিন হয়ে উঠতো।

না বেশিক্ষণ আর সাগরে থাকা হল না, হোটেলে ফিরে এলাম, এবং ভেজা কাপড়েই রুমে প্রবেশ। হোটেলের কেউ কিছু বললনা। ফ্রেস হয়ে এবার খাবার মানে দুপুরের আহার। মজার ব্যাপার বৈদেশ ভ্রমনে আমার আহার ও নিদ্রার ছুটি হয়ে যায়।

সেভেন ইলেভেন ও ফ্যামিলী মার্ট ২৪ ঘন্টা খোলা, আপনার প্রয়োজনীয় খাবার নিয়ে সেবা নিয়ে প্রস্তুত। চেইন সপ গুলি সারা থাইল্যান্ড জুড়ে, আপনি যেখানে যাবেন সঙ্গে পাবেন। বাইরে থেকে কম দাম। যা খেতে চান যা নিতে চান। খাবারের আগে দেখে নিবেন ইহাতে কোন প্রাণীর গোস্ত রহিয়াছে। খেয়াল করুন জুস কিনছেন নাকি ফরেন লিকার নাকি গ্রীণ টি। কারণ পর্ক বা চিকেন জুস বা ওয়াইন ইহাদের সহাবস্থান।

ভয় পেলেন নাকি, ভয় দূর করতে চলে যান ফলের দোকানে ত্রিশ বাথে আমের জুস বা অন্যকোন ফলের জুস খেয়ে নিন ভীষণ ভাল লাগবে।তা আমাদের দুপুরের আহার হল সেভেন ইলেভেনের সৌজন্যে।

এরপর বন্ধু খোকনের নির্দেশ মত ফুকেটে আম খাওয়ার পালা, পাকা না কাচা আমের চাটনি বাহ্ ঝাল, লবন ও চিনির মিশ্রণে কাচামিঠা আম হয়ে উঠল, আহা যেন অমৃত।  (চলবে)

লেখকঃ মাহাতাব লিটন, প্রজেক্ট ম্যানেজার, WML