পর্যটন শিল্প ধরে রাখতে হোটেল-রিসোর্ট খুলতে চান মালিকরা

HOtel

টেক ট্র্যাভেল ডেস্ক ঃ প্রতি বছর ঈদের পরদিন থেকে পর্যটকে ভরপুর হয়ে উঠে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত নগরী কক্সবাজার। চলে পুরোদমে ব্যবসা। কিন্তু এবার বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে সেটি আর হয়ে উঠেনি। প্রায় দুই মাস ধরে লকডাউনের কবলে পড়েছে পর্যটন শিল্প। এতে বেকার হয়েছে অন্তত ৩৫ হাজারের বেশী শ্রমিক। চরম লোকসানে পড়েছে হোটেল-রিসোর্ট ও পর্যটন সংশ্লিষ্ট্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

এমন পরিস্থিতিতে এ শিল্পকে ধরে রাখতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানোর সব প্রস্তুতি নিয়ে সীমিত পরিসরে হলেও হোটেল-রিসোর্ট খুলতে চান মালিকরা।

এদিকে, প্যাসিফিক এশিয়া ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশন (পাটা) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের হিসেবে, শুধু রমজান ও ঈদ মৌসুমে দেশের হোটেল ট্যুরিজম খাত ৫০০ কোটি টাকার ব্যবসা হারিয়েছে। আর ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) বলছে, অ্যাভিয়েশন খাত ছাড়া শুধু হোটেল-রিসোর্টসহ পর্যটনের বিভিন্ন ব্যবসায় এ বছর এখন পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।

ওয়াল্ড বীচ রিসোর্টের পরিচালক শাহিনুল ইসলাম শাহিন বলেন, দীর্ঘ সময় হোটেলের কার্যক্রম বন্ধ। একেবারে বেকার হয়ে পড়েছে শ্রমিকরা। মালিকরা চলতে পারবে কোন না কোন ভাবে কিন্তু শ্রমিকরা কি করবে। তাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মেনে কিছুটা হলেও সচল করা হোক।