পাবনা জেলায় অবস্থিত ‘’শ্রী শ্রী অনুকুল চন্দ্র ঠাকুরের আশ্রম ”

মোঃ জসিম উদ্দিন, পাবনা, সাথিয়া প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগে পাবনা জেলার সদর হেমায়েতপুর গ্রামে অবস্থিত ‘’শ্রী শ্রী অনুকুল চন্দ্র ঠাকুরের আশ্রম”। পাবনা শহরে হেমায়েতপুর গ্রামে শী শ্রী অনুকুল চন্দ্রের সৎসঙ্গ ( আশ্রম-মন্দির ) টি অবস্থিত। অনুকুল চন্দ্রের পিতা ছিলেন হেমায়েতপুর গ্রামের শ্রী শিবচন্দ্র চক্রবর্তী এবং মাতা ছিলেন শ্রী যুক্তা মনমোহিনী দেবী । সৎসঙ্গ আশ্রমটি বর্গাকৃতির ভবনটির শীর্ষদেশ চারটি ত্রিভূজ আকৃতির ক্রমহ্রাস্মান ছাদে আচ্ছাদিত ছিল । এ মন্দিরের শিখর ক্ষুদ্রাকৃতির কলস ফিনিয়ালে আকর্ষনীয় বৈশিষ্টমন্ডিত ছিল । মন্দিরের পাশেই শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের পূজার ঘর অবস্থিত।

এ ক্ষুদ্র ভবনটি গম্বুজবিশিষ্ট এবং ধনুক বক্র কার্নিশ ও গম্বুজের চারকোণে চারটি দৃষ্টিনন্দন শিখর ধারন করে । শ্রী শ্রী অনুকূল চন্দ্রের পিতা-মাতার স্মৃতিরক্ষার্থে এই মন্দির নির্মিত।মন্দিরের সম্মুখ প্রাসাদে ‘স্মৃতি মন্দির’ কথাটি পাথরের উপরে উৎকীর্ণ করা আছে। অনুকূলচন্দ্র ‘সৎসঙ্গ’ নামে একটি জনহিতকর সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। প্রকৃত অর্থে অনুকূল ঠাকুর মানবকল্যাণে তাঁর জায়গা-জমি যথাসর্বস্ব উৎসর্গ করে গেছেন। স্মৃতিমন্দিরটি অন্যান্য ইমারতের তুলনায় এখনো সুসংরক্ষিত অবস্থায় আছে।

সম্প্রতি নব নির্মিত সৎসঙ্গ-আশ্রম-মন্দির সমন্বয়ে গঠিত স্থাপত্য নিদর্শনটি সহজেই সবার দৃষ্টি আকর্ষন করে। এখানে শ্রী শ্রী অনুকূল চন্দের জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকীকে কেন্দ্র করে বিরাট অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ঐ সময় এখানে প্রচুর লোক/অতিথির সমাগম হয়। প্রায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম হয় বলে জানা যায়। ভারত হতেও লোকজন এখানে আসেন। এ সম্পদের প্রয়োজনীয় মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ জরুরী। সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে আশ্রম এলাকায় প্রয়োজনীয় পর্যটন সুবিধাদি প্রবর্তন করা হলে সারা বছরই এখানে দেশী/বিদেশী পর্যটকগণ আসা/যাওয়া করবেন।

কিভাবে যাবেনঃ দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে পাবনা গামী বাস যোগে পাবনা বাস স্ট্যান্ড এ নামতে হবে তারপর রিকসা, সিএনজি দিয়ে শ্রী শ্রী অনুকুল চন্দ্র ঠাকুরের আশ্রম যেতে পারেন।

কোথায় থাকবেনঃ পাবনায় থাকার জন্য বেশকিছু বিভিন্ন মানের এসি, নন-এসি আবাসিক হোটেল পাবেন। যেমনঃ হোটেল প্রবাসী ইন্টার ন্যাশনাল, মিড নাইট মুন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, প্রাইম গেস্ট হাউস, ছায়ানীড় হোটেল।

কোথায় খাবেনঃ পাবনা আব্দুল হামিদ রোডে বেশ কিছু খাবার হটেল রয়েছে এর মধ্যে স্বাগতম হোটেল এন্ড চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, ছায়ানির, মিড নাইট মুন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট উল্লেখ যোগ্য।