বাংলাদেশের প্রথম বিমান জাদুঘর

গোলাম রাব্বী আকন্দ (জেলা প্রতিনিধি) : দেখা হই নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে দু পা ফেলিয়া, একটি ধানের শীষের উপর এক ফোঁটা শিশির বিন্দু। বিমান বাহিনী জাদুঘর ঢাকার আগারগাঁওয়ে অবস্থিত বাংলাদেশের প্রথম বিমান জাদুঘর। বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর গৌরবময় ঐতিহ্যের ইতিহাস, সাফল্য ও উন্নয়নের ক্রমবিকাশকে সংরক্ষণ এবং নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার প্রয়াসে এই জাদুঘর ২০১৪ সালে উন্মু্ক্ত করা হয়। এখানে এসে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে ব্যবহৃত ঐতিহাসিক বিমান ও হেলিকপ্টারসহ নানা নিদর্শন কাছে থেকে দেখার সুযোগ পান দর্শনার্থীরা। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে স্থাপিত বাংলাদেশ বিমান জাদুঘর এ রয়েছে ১৯ বিমান ও ৩ টি রাডার। এরমধ্যে ৩টি বিমান বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতীয় বিমান বাহিনী ব্যবহার করে।

বিমান বাহিনী সামরিক জাদুঘরটি মূলত বিভিন্ন সময়ের হেলিকপ্টার ও বিমান দিয়েই সাজানো হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেঃ- বলাকাঃ বলাকা বাংলাদেশের প্রথম যাত্রীবাহী বিমান। রাশিয়ার তৈরি এই বিমানটি বাংলাদেশে আসে ১৯৫৮ সালে। এয়ার টুওরারঃ ট্রেইনিংয়ে জন্য এই বিমান ব্যবহার করা হয়। ১৯৯৭ সালে নিউজিল্যান্ডের তৈরি এই বিমান বাংলাদেশ বিমান বাহিনিতে যোগ হয়। পিটি-৬ঃ ১৯৮৫ সালে চিনের তৈরি এই বিমানটি বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে যুক্ত হয়। ফুগাসি এম-১৭০ঃ ফ্রান্সে ১৯৬০ সালে তৈরি করা এই বিমানটি বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে যুক্ত হয় ১৯৯৭ সালে।

গ্লাইডারঃ বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর আকাশ অভিজ্ঞতার জন্য জার্মানির দেওয়া এই বিমানটি বাংলাদেশে আনা হয় ১৯৮২ সালে। এয়ারটেক কানাডিয়ান ডিএইচ ৩/১০০০ঃ কানাডার তৈরি এই বোমারু বিমানটি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রাম সুমদ্র বন্দরে সফল অভিযান পরিচালনা করে। হান্টার বিমানঃ মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত বাংলাদেশকে ভূমি শত্রু থেকে রক্ষা করতে এই বিমানটি ব্যবহার করে। ভারতীয় বিমানবাহিনী বাংলাদেশ বিমানবাহিনীকে এই বিমানটি উপহার দেয়। বিমান বাহিনীর সরঞ্জাম প্রদর্শনের পাশাপাশি ফুড কোর্ট ও স্যুভেনির শপ আছে জাদুঘরটিতে। শিশুদের মনোরঞ্জন ও উৎসাহ বৃদ্ধির জন্য শিশু পার্কের পাশাপাশি ফুটপাথের বিভিন্ন পয়েন্টে

স্থাপন করা হয়েছে জিরাফ, শিম্পাঞ্জি, হরিণ ইত্যাদি নানা রকম পশু-পাখির প্রতিকৃতি। এটার নাম দেয়া হয়েছে ‘চিলড্রেন হেভেন’। রয়েছে পানির ফোয়ারাও। এছাড়া পাহাড়ের আদলে তৈরি হচ্ছে ‘থিম পার্ক’। জাদুঘরের সময়সূচী:- বিমান বাহিনী জাদুঘর সোম থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এবং শুক্র থেকে শনিবার সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকে। রবিবার সাপ্তাহিক ছুটি। টিকেট মূল্য: ৫০ টাকা মূল্যের টিকেট সংগ্রহ করে জাদুঘরে প্রবেশ করা যায়। এছারাও ৩০/৫০/৮০ টাকার টিকেটের বিনিময়ে ভেতরের অনেক গুলো রাইড আপনি খুরে দেখতে পারবেন।


কিভাবে যাবেনঃ মতিঝিল কিংবা গুলিস্থান থেকে আসতে চাইলে মিরপুর ১০, মিরপুর ১১ অথবা মিরপুর ১২ গামী যে কোন বাসে আগারগাও বললেই নিয়ে আসবে। আবদুল্লাপুর, এয়ারপোর্ট  অথবা মহাখালি দিয়ে আসতে চাইলে মিরপুর, শ্যমলী গামী যে কোন বাসে আগারগাও। আর আগারগাও সিগনাল ও আইডিবি ভবনের পূর্বে এ বিমান বাহিনী জাদুঘর সময় ও সুযোগ বুঝে প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন বাংলাদেশ বিমান জাদুঘর থেকে।
বিঃদ্রঃ কোথাও ঘুরতে গিয়ে যেখানে সেখানে ময়লা,আর্বজনা, চিপসের প্যাকেট ইত্যাদি না ফেলে নির্ধারিত জায়গায় ফেলেন। জীবনে যা পেয়েছেন তারচেয়ে ভাল কিছু রেখে যান।