মাধবকুন্ড জলপ্রপাতে একদিন

full_106580

মনজুরুল ইসলাম : মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : যান্ত্রিক জীবনে প্রকৃতির পরশ মাখতে পরিবারের সদস্য কিংবা বন্ধুরা মিলে ঘুরে আসতে পারেন প্রাকৃতিক সৌন্দের্য্যরে অপূর্ব লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলার উত্তর প্রান্তিক জনপদ বড়লেখা থেকে। পর্যটকদের মুগ্ধ করার জন্য এখানে রয়েছে কয়েকটি দর্শনীয় স্থান।

এরমধ্যে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক জলপ্রপাত মাধবকুণ্ড, পাথারিয়া চা বাগান, এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকি। যা পর্যটকদের মনকে মাতিয়ে তুলবে।সৌন্দর্যের লীলাভূমি নামে খ্যাত মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার মাধবকুন্ড জলপ্রপাত, দিগন্ত বিস্তৃত সবুজ চা বাগান, পাহাড়ী আদিবাসীদের জীবনধারা, হাকালুকি হাওর আর আগর বাগানের মোহময় আকর্ষণ করে দেশ বিদেশের দর্শনার্থীদের। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অনুপম সৃষ্টি মাধবতীর্থ মাধবকুন্ড। মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের অবিরাম ধারা পতনের শব্দ সৃষ্টি করছে মায়াময় পরিবেশের। প্রকৃতি যেন বর্ণনার উপাচার নিয়ে সামনে দাঁড়ায়। পর্যটকদের জন্য উৎকৃষ্ট পর্যটন কেন্দ্র মাধবকুন্ড জলপ্রপাত। প্রতিদিন দেশ-বিদেশের ভ্রমনপিপাসু পর্যটকদের মিলনমেলায় পরিণত হয় মাধবকুন্ড জলপ্রপাত

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে যাওয়ার উত্তম সময় হলো বর্ষাকাল। এই সময় ঝর্ণা পানিতে পূর্ণ থাকে। পাহাড়ি ছড়ার প্রায় ২শ’ ফুট উপর থেকে যুগ যুগ ধরে গড়িয়ে পড়ছে পানি। এই স্বর্গীয় আমেজে ঘুরে আসতে পারেন মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে। কয়েক যুগ ধরে মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতের অঝরধারা প্রবাহমান থাকলেও সত্তরের দশকে দর্শনীয় স্থান হিসেবে এটির পরিচিতি প্রকাশ পায়। বড়লেখা উপজেলার ৮নং দক্ষিণভাগ উত্তর (কাঁঠালতলী) ইউনিয়নের গৌড়নগর মৌজায় মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতের অবস্থান। প্রায় ২০০ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত, সুবিশাল পর্বত গিরি, শ্যামল সবুজ বনরাজি বেষ্টিত ইকোপার্ক, পাহাড়ী ঝরনার প্রবাহিত জলরাশির কলকল শব্দ সবমিলিয়ে মাধবকুণ্ড বেড়াতে গেলে পাওয়া যায় এক স্বর্গীয় আমেজ। এছাড়া ইকোপার্কের অভ্যন্তরে পরিকুন্ড নামে আরেকটি জলপ্রপাত আছে। জলপ্রপাতের পাশ ঘেষে যাওয়া খালটির উপর নির্মাণ করা হয়েছে কৃত্রিম পাখি, মৎস্যকন্যা, মাছ প্রভৃতির দৃষ্টিনন্দন সব মূর্তি।

জলপ্রপাত এলাকায় মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের ব্যবস্থাপনায় নির্মিত হয়েছে রেষ্ট হাউস, পর্যটন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনায় রয়েছে রেস্তোরা। মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখায় স্থাপিত দেশের প্রথম ইকোপার্ক, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত, আশপাশ এলাকার চা বাগান, পাহাড়ি টিল, হাকালুকি হাওর দেশী-বিদেশী পর্যটক ও ভ্রমণ পিপাসুদের দিন দিন কাছে টানছে